• বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
শ্রীপুরে ওয়েভ ফাউন্ডেশনের করোনাকালীন অনুদানের অর্থ বিতরণ এমপি ফরিদুল হক খান দুলাল ধর্মপ্রতিমন্ত্রী হওয়ায় ইসলামপুরে আনন্দ মিছিল প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন ফরিদুল হক সেচ্ছাসেবী সংগঠন গ্যালাক্সি র তজুমদ্দিনে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচী পুনঃনিয়োগ পেলেন ইবি’র সহকারী তিন প্রক্টর বাঘারপাড়ায় সীমানা পিলার উদ্ধার, গ্রেফতার ১ শ্যামনগরে প্রতিবন্ধীদের সরকারি ও বেসরকারী কর্মসূচিতে অর্ন্তভুক্তিকরণ বিষয়ে মতবিনিময় সুন্দরগঞ্জে কৃষকলীগের র‌্যালী অবৈধ হাসপাতাল ও ল‍্যাবের তালিকা করবে চসিক তাহিরপুর সীমান্তে বর্ডার হাট পরিদর্শনে ভারতীয় সহকারী হাই কশিশনার

লক্ষ্মীপুরে পরিবার কল্যাণ সহকারী বিলকিস এর বাসায় অবৈধ হাসপাতাল!

জেলা সংবাদদাতা
প্রকাশ হয়েছে : শনিবার, ১৪ নভেম্বর ২০২০ | ৫:২৩ pm
                             
                                 

লক্ষ্মীপুরে পরিবার কল্যান সহকারী বিলকিস বেগমের বিরুদ্ধে বাসাকে হাসপাতাল বানিয়ে প্রসূতি মায়েদের ডেলিভারী ও সর্বরোগের চিকিৎসা চালানোর অভিযোগ উঠেছে । আইনকে তোয়াক্কা না করে জন্ম নিয়ন্ত্রণ ইনজেকশান ও অন্যান্য পদ্ধতিও দিচ্ছেন তিনি। চিকিৎসা বিজ্ঞানে কোন ডিগ্রী না থাকলেও গাইনী ও প্রসূতি রোগী দেখছেন ও চিকিৎসা দিচ্ছেন হরহামেশা।

সরেজমিনে দেখা যায়, জেলার কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের লরেঞ্চ দক্ষিন বাজারের আউয়াল মেম্বারের বাড়িতে নিজ বাসায় ৩টি রুমকে হাসপাতাল বানিয়ে নিয়মিত রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন একই ইউনিয়নে দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিবার কল্যাণ সহকারী বিলকিস বেগম । এতে প্রতারিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। ওয়ার্ড পর্যায়ে গর্ভবতী মায়েদের তালিকা করা, নিয়মিত চেকআপ নিশ্চিত করা ও হাসপাতালে নিরাপদ ডেলিভারী করতে সহায়তা করা ও টিকা নিশ্চিত করাই যার কাজ অথচ কোন ডিগ্রী না থাকলেও তিনি প্রতিদিন চেম্বার করছেন।
নিজের হাসপাতালে তিনি নিজেই করছেন ডেলিভারী। এছাড়াও স্ত্রী রোগ, কিশোরী, প্রসূতি ও মহিলাদের বিভিন্ন গাইনী রোগের চিকিৎসা করছেন। জন্ম নিয়ন্ত্রন ইনজেকশান ও বিভিন্ন প্রদ্ধতি দিয়ে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, সরকারী ভাবে ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে হাসপাতালগুলোতে বিনামূল্যে প্রসূতি মায়েদের ডেভিভারীসহ সকল রোগের চিকিৎসার জন্য আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে। পরিবার কল্যাণ সহকারী হওয়ার সুবাধে বিলকিস গ্রামের প্রসূতিদের তালিকা প্রণয়ন করে থাকেন। ঠিক তখনই কেউ ডেলিভারীর জন্য আসলে সরকারি হাসপাতালে না পাঠিয়ে নিজের চেম্বারে ডেলিভারী করে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। এছাড়াও হাসপাতালের পাশেই নিজের নামেই দিয়েছেন ফার্মেসী। অধিকমূল্যে ওষুধ বিক্রি করেও করছেন প্রতারণা।

ডিগ্রী না থাকার পরেও অবৈধভাবে বাসাকে হাসপাতাল বানিয়ে ডেলিভারী ও রোগী দেখছেন মর্মে জানতে চাইলে বিলকিস বেগম চেঁছিয়ে বলেন, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের ডিজি তাকে ট্রেনিং দিয়েছেন। এছাড়াও তাকে ঘরে বসে না থেকে রোগী সেবা দিতে বলছেন। ডিজির অনুমতিতেই তিনি এই হাসপাতাল বানিয়েছেন এবং সেবা দিচ্ছেন। হাসপাতালের অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন তার ড্রাগ লাইসেন্স আছে।

জানা যায়, লক্ষ্মীপুর-কমলনগর মহাসড়কের পাশেই ডা: বিলকিস বেগম লেখা বিশাল সাইনবোর্ড ইতোমধ্যে জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালকের নির্দেশে সরাতে বাধ্য হন তিনি। এছাড়াও বাসায় অবৈধ হাসপাতাল কার্যক্রম বন্ধ করতে তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে শুধু নামের আগে ডাক্তার লেখা মুছে সকল কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন।

বাসায় রুম ব্যবহার করে হাসপাতালের কার্যক্রম চালাতে পারেন কিনা জানতে কমলনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করতে চাইলে তাকে পাওয়া যায়নি।

জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ডা: আশফাকুর রহমান মামুন বলেন, কোনভাবেই তিনি বাসায় প্রসূতি সেবা বা কোন চেম্বারে সেবা দিতে পারবেননা। তার কাজ হলো মাঠে প্রসূতিদের সরকারি সেবা নিশ্চিত করা। কারো ডেলিভারীর প্রয়োজন হলে তাকে নিয়ে নিকটস্থ সরকারি হাসপাতালে প্রেরণ করা। তাকে এর আগেও সতর্ক করা হয়েছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 2
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর