• মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
শিগগির বাংলাদেশে ‘কোভ্যাক্সিন’র ট্রায়াল চালাতে চায় ভারত সাতক্ষীরায় জুলাই মাসে করোনায় ১৫, উপসর্গে ২০৫ জনের মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জ ছিনতাইকৃত মহিষ আক্কেলপুরে উদ্ধার রবিউল এবার পেল সুচিকিৎসার ব্যবস্থা, সমাজসেবা থেকে পেল আর্থিক সহায়তা বোয়ালমারীতে জেলা পরিষদ বানিজ্যিক ভবনের কক্ষ থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার সুন্দরগঞ্জে টিকা সম্প্রসারণে অবহিতকরণ সভা মাধবপুরে কঠোর নজরদারিতে এসিল্যান্ড অভিযানে ১৩টি মামলায় জরিমানা সেই পরিত্যক্ত ঘরেই মারা গেলেন জনপ্রিয় শিক্ষক যত্রতত্র ফেলা হচ্ছে বর্জ্য, হুমকির মুখে পরিবেশ বকশীগঞ্জে ৩৩৩ ফোন ও খুদে বার্তা পাঠিয়ে খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন ১৪০০ পরিবার!

শাহজাদপুরে মাত্র দুই’শ মিটার কাঁচা সড়কে দূর্ভোগে হাজারো মানুষ

মাসুদ মোশাররফ, শাহজাদপুর(সিরাজগঞ্জ)
প্রকাশ হয়েছে : সোমবার, ৫ জুলাই ২০২১ | ৬:০৮ pm
                             
                                 

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোরজনা ইউনিয়নের জামিরতা পূর্বপাড়া গ্রামের মাত্র ২শ মিটার কাঁচা সড়কে প্রায় তিন হাজার মানুষের চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিশেষ করে বর্ষাকালে ৪ থেকে ৫ মাস পানির নীচে ডুবে থাকে গ্রামবাসীর একমাত্র চলার পথটি। গ্রামবাসীর চলাচলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই সড়ক দিয়ে মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ প্রায় ৩ হাজার মানুষ প্রতিনিয়ত যাতায়াত করে থাকে।
উপজেলার পোরজনা ইউনিয়নের জামিরতা পূর্বপাড়ায় রয়েছে ‘জামিরতা পূর্বপাড়া হযরত বেলাল (রাঃ) হাফিজিয়া মাদ্রাসা’ ও মুসল্লীদের নামাজ আদায়ের জন্য রয়েছে একটি মসজিদ। এই হাফিজিয়া মাদ্রাসায় ৫৫ জন শিক্ষার্থী রয়েছে যার মধ্যে ৩০ জন শিক্ষার্থী দুঃস্থ এতিম ও অসহায়। এছাড়াও এই সড়ক দিয়ে স্কুল কলেজে পাঁচ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী নিয়মিত যাতায়াত করে।
এলাকাবাসী জানান, আমাদের মসজিদের যাতায়াতের এই একটি সড়কে বন্যার পানি আসলেই আমরা মসজিদে যেতে পারি না মাদ্রাসাটিও বন্ধ হয়ে যান রাস্তা ডুবে থাকার কারনে, ছেলে-মেয়েরা স্কুল – কলেজে যেতে পারে না। অপরিমেয় দূর্ভোগে পড়তে হয় এই সামান্য রাস্তা উচু না হওয়ার কারনে।
এ ব্যাপারে মাদ্রাসা ও মসজিদ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম মোস্তাফা বলেন, আমাদের পুরো গ্রামবাসির এই একটি মাত্র মসজিদ এবং মাদ্রাসা করা হয়েছে। কিন্তু একটু বৃষ্টি ও বন্যা হলেই প্রায় ৪-৫ মাস মুসুল্লিরা নামাজে আসতে পারেনা এবং বেশি বন্যা হলেই মাদ্রাসা বন্ধ করে দেওয়া হয়। তাই যদি স্থানীয় সরকার বা ব্যাক্তিগত ভাবে হোক সড়কটি উঁচু করে দিলে অন্তত মুসলমানদের ধর্মীয় কাজ ইবাদত করতে পারবে এবং ছাত্র ছাত্রীরা স্কুল কলেজে যেতে পারবে।
এ ব্যাপরে পোরজনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন বাবু জানান, প্রকল্পের মাধ্যমে খুব দ্রুতই রাস্তাটি উঁচু করে পাকাকরণের পরিকল্পনা রয়েছে। করোনা মহামারি শেষ হলেই সংস্কার করে জনগণের দূর্ভোগ লাঘব করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর