• বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৯:০৩ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
গৌরীপুরে ছাত্র ইউনিয়নের মশাল মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে বসন্ত উৎসবের আয়োজন বিজিবি মহাপরিচালকের শ্যামনগর থানা ও শিকারী পচাব্দী গাজীর বন্দুক পরিদর্শন শ্যামনগর দেবীপুর কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শনে বিভাগীয় পরিচালক স্বাস্থ্য বিভাগ চুনারুঘাটের সাতছড়ি থেকে ১৮ টি রকেট লাঞ্চার উদ্ধার নাটেরে প্রশাসনের সহায়তায় বিক্রি হওয়া শিশুকে ফিরে পেলেন মা ফুলজান সাতক্ষীরায় হঠাৎ করেই বাস চলাচল বন্ধ, ভোগান্তিতে যাত্রীরা ধর্মপাশায় ইউপি সদস্য আবুল কাশেম মহত উদ্যোগে রাস্তা মেরামত  নাটোরে গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকান্ড বন্ধে বকুল এমপি’কে সর্তক করে চিঠি দিয়েছে জেলা আ’লীগের সেক্রেটারি  সুনামগঞ্জে ৫শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

চট্টগ্রামে ১৫ পৌরসভার মধ্যে ১০ পৌরসভার নির্বাচনী প্রস্তুতি

মোঃ সিরাজুল মনির, চট্টগ্রাম
প্রকাশ হয়েছে : সোমবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২০ | ৫:৫০ pm
                             
                                 

চট্টগ্রামের ১৫ পৌরসভার মধ্যে ১০টিতে ডিসেম্বরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এজন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে জেলা নির্বাচন অফিস। চলছে পৌরসভাগুলোর ভোটকেন্দ্রের কাজ। ভোট হতে যাওয়া পৌরসভাগুলো হচ্ছে- সীতাকুণ্ড, মীরসরাই, বারৈয়ারহাট, রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, পটিয়া, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া, বাঁশখালী ও সন্দ্বীপ।

চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আতাউর রহমান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ওই ১০টি পৌরসভার মেয়াদ ৫ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। ডিসেম্বরে সেসব পৌরসভায় ধাপে ধাপে নির্বাচন হবে। কমিশন থেকে আগামী ২০ নভেম্বরের মধ্যে তফসিল ঘোষণা করা হতে পারে। তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের কমিশনের নির্দেশনায় এসব পৌরসভায় নির্বাচনের ভোটগ্রহণের জন্য সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে পৌরসভাগুলোর খসড়া ভোটকেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। যাচাই-বাছাই ও শুনানি শেষে শিগগিরই চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, নির্বাচন কমিশনের বিধি ও পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী প্রথম সভার দিন থেকে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা পরবর্তী ৫ বছর দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। পাশাপাশি মেয়াদোত্তীর্ণের ৯০ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণের বিধান রয়েছে। সেই হিসেবে চট্টগ্রামের ১০টি পৌরসভার মেয়াদ শেষ পর্যায়ে। মিরসরাই ও বারৈয়ারহাট পৌরসভার নির্বাচন হয় ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। পরের বছর ২৪ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ করলেও দেড় মাস পর হয় প্রথম সভা। পৌরসভা দুটির মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ৭ মার্চ।

সীতাকুণ্ড পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৪ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ শেষে ৩ ফেব্রুয়ারি প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি।

সন্দ্বীপ পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৩ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ এবং পরদিনই প্রথম সভা হয়। সেই হিসেবে সন্দ্বীপ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হবে আগামী ২৪ জানুয়ারি।

রাউজান পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৫ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ শেষে প্রায় দুই মাস পর (২৪ মার্চ) প্রথম সভা হয়। এটির মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ২৪ মার্চ।

রাঙ্গুনিয়া পৌরসভায় ভোটগ্রহণ হয় ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। পরের বছর ২৪ জানুয়ারি শপথগ্রহণ শেষে ৩ এপ্রিল প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বছরের ৩ এপ্রিল।

পটিয়ায় নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি শপথ গ্রহণ এবং ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রথম সভা হয়। পটিয়া পৌরসভার মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি।

চন্দনাইশ পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৫ জানুয়ারি শপথ এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি প্রথম সভা হয়। সেই হিসেবে এ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হবে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি। সাতকানিয়া পৌরসভায় ভোটগ্রহণ হয় ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। পরের বছরের ২৪ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ এবং ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়। এখানকার মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি।

বাঁশখালী পৌরসভার নির্বাচন হয় ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর। ২০১৬ সালের ২৪ জানুয়ারি শপথগ্রহণ এবং ১৮ ফেব্রুয়ারি প্রথম সভা হয়। এ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি।

এছাড়া ফটিকছড়ি পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর। ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর শপথ গ্রহণ এবং একইদিন প্রথম সভা হয়। এ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হবে ২০২২ সালের ৬ ডিসেম্বর। নাজিরহাট পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল ২০১৮ সালের ৩০ মার্চ। ২০১৮ সালের ২৩ এপ্রিল শপথ গ্রহণ এবং ৩০ এপ্রিল প্রথম সভা হয়। সেই হিসেবে এ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হবে ২০২৩ সালের ৩০ এপ্রিল।

এদিকে পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক প্রার্থীরা বিভিন্ন ভাবে ভিন্ন কৌশলে ভোটাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টায় আছেন। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে প্রার্থীদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মত। সুযোগ পেলেই নিজের জন‍্য ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 2
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর