• বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৯:২১ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে লক্ষ্মীপুরে জেলা পরিষদের কেক কাটা ও আলোচনা সভা মণিরামপুরের সেরা ষাঁড়ের দাম ১৫ লাখ টাকা বাংলাদেশের টিকা উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী গৌরীপুর আওয়ামীলীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বিভিন্ন কর্মসুচীর মধ্যে দিয়ে বাগেরহাটে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে নগদ টাকা বিতরণ ফুলবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত মণিরামপুরে কঠোর লকডাউন: ১৩ দোকানির জরিমানা শাহজাদপুর প্রেসক্লাবের দ্বি-তল ভবন উদ্বোধন করলেন এমপি স্বপন পাঁচ হাসপাতালে দৌড়াদৌড়ি, শ্বাসকষ্টে শিক্ষকের মৃত্যু

যশোরেশ্বরী কালী মন্দিরে পূজা অর্চনা করলেন নরেন্দ্র মোদি

রনজিৎ বর্মন, শ্যামনগর (সাতক্ষীরা)
প্রকাশ হয়েছে : শনিবার, ২৭ মার্চ ২০২১ | ৪:২৮ pm
                             
                                 
শ্যামনগর যশোরেশ^রী কালী মন্দিরে পূর্জা অর্চনা শেষে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ফটোসেশনে অংশ নেন।

বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমের সুন্দরবন সংলগ্ন সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর যশোরেশ্বরীপুর কালী মন্দিরে পূজা অর্চনা করলেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মন্দিরের অভ্যন্তরে পুরোহিত হিসাবে প্রধানমন্ত্রীকে মন্ত্র পাঠ করান দিলিপ কুমার মুখ্যার্জী।

তিনি শনিবার সকাল ১০টায় ঈশ্বরীপুর এ সোবহান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে হেলিকপ্টার যোগে অবতরণের পর হেলিপ্যাড থেকে নেমে প্রায় আধা কিলোমিটার সড়ক পথে মোটরশোভা যাত্রা সহকারে সরাসরি মন্দিরে চলে আসেন। মন্দিরে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীকে সেবাইত পরিবারের পক্ষ থেকে প্রথমে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন কৃষ্ণা চট্রোপাধ্যায় ও বিশিষ্ট আবৃতিকার জয়ন্ত চট্রোপাধ্যায়। এর সাথে সাথে নির্ধারিত সনাতনধর্মী নারীরা উলু ধ্বনী, শঙ্ক ধব্বনী ও ঢাকীরা ঢাক বাজিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

মন্দিরের পুরোহিত জানান প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদি প্রায় ১৫ মিনিট পূজা অর্চনা করেন এবং পূর্জ অর্চনা শেষে মন্দির অভ্যন্তরের চার পাশ ঘুরে দেখেন। এর পর তিনি মন্দিরের নির্ধারিত বিশ্রামাগারের কয়েক মিনিট বিশ্রাম শেষে এক ফটো সেশন ও কুশল বিনিময় করে গোপালগঞ্জের উদ্দেশ্যে মন্দির থেকে রওনা দেন।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে নেওয়া হয় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা। সফরকালিন সময়ে পুলিশ, র‌্যাব, ডিবি পুলিশ, ডিজি এফ আই , এন এস আই , বিজিবি, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সহ অন্যান্য পর্যায়ের কয়েক হাজার নিরাপত্তা বাহিনী নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন। জানা যায় মন্দিরের বেশ কয়েক কিলোমিটার দূর পর্যন্ত জোরদারভাবে নিছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল ।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে হেলিপ্যাড থেকে মন্দির পর্যন্ত নান্দনিকভাবে সাজানো হয়। মন্দিরকে সাজানো হয় ফুল দিয়ে । এছাড়া সড়কের দুপাশ ছিল বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর ছবি, বাঁশের তৈরী শিল্প কর্ম সহ অন্যান্য কর্ম চিত্র। কালী মন্দিরের পূর্জা অর্চনা শেষে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদি গোপালগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা হন।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর