• বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৮:৫১ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে লক্ষ্মীপুরে জেলা পরিষদের কেক কাটা ও আলোচনা সভা মণিরামপুরের সেরা ষাঁড়ের দাম ১৫ লাখ টাকা বাংলাদেশের টিকা উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী গৌরীপুর আওয়ামীলীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বিভিন্ন কর্মসুচীর মধ্যে দিয়ে বাগেরহাটে আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে হতদরিদ্রদের মাঝে নগদ টাকা বিতরণ ফুলবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত মণিরামপুরে কঠোর লকডাউন: ১৩ দোকানির জরিমানা শাহজাদপুর প্রেসক্লাবের দ্বি-তল ভবন উদ্বোধন করলেন এমপি স্বপন পাঁচ হাসপাতালে দৌড়াদৌড়ি, শ্বাসকষ্টে শিক্ষকের মৃত্যু

সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনায়

শাল্লা থানার ওসি নাজমুলকে বরখাস্ত;দিরাইয়ের ওসি আশরাফুলকে বদলি

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া, হাওরাঞ্চল, সুনামগঞ্জ
প্রকাশ হয়েছে : বুধবার, ৭ এপ্রিল ২০২১ | ২:২৬ pm
                             
                                 

সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে সনাতন ধর্মাবলম্বিদের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার প্রমান পাওয়ায় শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হককে বরখাস্ত করা হয়েছে। একই ঘটনায় পাশর্^বর্তী দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল ইসলামকে মৌলভীবাজারে বদলি করা হয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) রাত সাড়ে ১১টায় সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান এঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন- উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে শাল্লা থানার ওসি নাজমুলকে সাময়িক বরখাস্ত করাসহ দিরাই থানার ওসি আশরাফুলকে মৌলভীবাজারে বদলি করা হয়েছে। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছিল।
উল্লেখ্য, গত ১৬ই মার্চ হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হককে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কুটক্তি করে স্ট্যাটাস দেয় সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা ঝুমন দাস আপন। এঘটনার প্রেক্ষিতে মামনুল হকের কর্মী-সমর্থকরা উত্তেজিত হয়ে ঝুমন দাসকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এঘটনার পরদিন সকালে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার স্বাধীন মিয়ার নেতৃত্বে ৪ গ্রামের প্রায় দুই সহশ্রাধিক লোকজন সংগঠিত হয়ে রামদা ও লাটিসুঠা নিয়ে সংলঘুদের গ্রাম নোয়াগাঁও গিয়ে হামলা চালিয়ে ৮৭টি বাড়িঘর ও ৬টি মন্দির ভাংচুর করে লুটপাট চালায়। এঘটনার প্রেক্ষিতে স্বাধীন মেম্বারসহ ৮০-৯০জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ১৪শ জনকে আসামী করে শাল্লা থানায় দুইটি পৃথক মামলা দায়ের করা হয়। মামলা দায়েরের পর বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে পলাতক থাকা প্রধান আসামী স্বাধীন মেম্বারসহ মোট ৩৩জনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাঘারে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর