• রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ১০:৩১ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম

সিরাজদিখানে হেফাজতের নায়েবে আমির ও ওসিসহ আহত শতাধিক

উপজেলা সংবাদদাতা
প্রকাশ হয়েছে : রবিবার, ২৮ মার্চ ২০২১ | ৭:৫৬ pm
                             
                                 

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ এর ডাকা হরতালকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর মধুপুর পীর আব্দুল হামীদ ও সিরাজদিখান থানার ওসি এসএম জালাল উদ্দিনসহ শতাধিক আহত হয়েছে বলে জানা যায়। এসময় ৭ টি ঘর-বাড়ী ভাঙচুরসহ অগ্নিসংযোগ ও ৪ টি মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়া হয় । এলাকায় পর্যাপ্ত পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন রয়েছে।
হেফাজতের কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা বশির আহমেদ, সিরাজদিখান থানার সেকেন্ড অফিসার সেকান্দর আলী, এসআই রাজু আহমেদ,ছাত্রলীগ নেতা তুষার,নাজমুল ইসলামসহ যুবলীগ ও হেফাজতের নেতাকর্মীসহ শতাধিক আহত হয়েছে । আহত হেফাজতের নায়েবে আমির আব্দুল হামিদকে ঢাকা সেন্টাল হাসপাতালে এবং সিরাজদিখান থানার ওসি এসএম জালাল উদ্দিনকে স্কায়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকীদেরকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ।
আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০ টায় হেফাজতের নায়েবে আমির আব্দুল হামিদের নেতৃত্বে একটি মিছিল ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক অবরোধ করতে চাইলে উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের নিমতলা-রাজানগর সড়কের শিকারপুর নামক এলাকায় পুলিশের বাধার মুখে পরে । এর আগে হেফাজতের আরো একটি গ্রুপ মহাসড়ক ঘন্টা ব্যাপি অবরোধ শেষে পীর সাহেবের সাথে যোগ দিলে হেফাজতের সাথে পুলিশ ,ছাত্রলীগ ,যুবলীগের নেতাকর্মীদের ত্রিমুখী সংঘর্ষ বেধে যায় । এ সময় পুলিশ টিয়ারশেল ও ২শ রাউন্ড গুলি ছুড়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।
এ সময় হেফাজতের নায়েবে আমির আব্দুল হামীদ গুলি বিদ্ধের খবর ছড়িয়ে পড়লে দুপুর ২ টায় হেফাজতের নেতাকর্মী ও স্থানিয়রা রাজানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম আলমগীর,রাজানগর ইউনিয়নের যুবলীগলের সভাপতি হোসেন আলী খান,সাধারন সম্পাদক শেখ শহীদুল্লাহ সোহেল,উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সদস্য আসাদুজ্জামান বিপ্লব,রাজানগর ইউনিয়নের ছাত্রলীগের আহবায়ক আসেলখান, ছাত্রীলগ নেতা এনামুল ইসলাম রিফাত,শাহআলম বেপারীর বাড়ীসহ ৭টি বাড়ীর মধ্যে ২টি আড়িতে অগ্নিসংযোগসহ ভাঙ্গচুর করা হয় ।
হেফাজতে ইসলামের সিরাদিখান উপজেলার সভাপতি ওবায়দুল্লাহ কাশেমী দাবী করে বলেন,হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির আব্দুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুরের শরীরে ৩ টি গুলি বিদ্ধ এবং হেফাজতের কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা বশির আহমেদ ৫টি গুলি বিদ্ধসহ আমাদের শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে এবং ২৫ জন নেতাকর্মীকে পুলিশ আটক করেছে । বাড়ীঘর ভাঙচুরের বিষয়ে তিনি অস্বীকার করে বলেন,এলাকার জনগন উত্তেজিত হয়ে ভাঙচুর করেছে ।
সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার(সিরাজদিখান সার্কেল)রাজিবুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় আমাদের ১০ জন পুলিশ আহত হয়েছে ,সিরাজদিখান থানার ওসি সাহেব গুরুতর আহত হয়ে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল পরে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । আটকের বিষয়টি একটু পরে বলতে হবে ।

-ইসমাইল খন্দকার

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 83
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর