• রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English

৩ রাউন্ড গুলিবর্ষন: ২ নারীসহ গ্রেফতার ৮

সুনামগঞ্জে পৃথক সংঘর্ষে মহিলা পুলিশসহ ২০জন আহত

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া, হাওরাঞ্চল, সুনামগঞ্জ
প্রকাশ হয়েছে : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭:৩০ pm
                             
                                 

সুনামগঞ্জে পৃথক সংঘর্ষের ঘটনায় ২ মহিলা পুলিশ, শিশু ও ইউপি মেম্মারসহ ২০জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সংঘর্ষের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৩ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। এঘটনা প্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে ২নারীসহ ৮জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে সংঘর্ষের পর থেকে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। তাই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ান করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়- গতকাল মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্ভর) সন্ধ্যায় জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের মৌলারপাড় গ্রামের রফিকুল ইসলাম রফু ও আল-আমিনের মধ্যে জায়গা জমির বিরোধ নিয়ে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষের সময় দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে একপক্ষ অন্যপক্ষের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এই খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসলে ২ মহিলা পুলিশ হামলার শিকার হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৩ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে। পরে সংঘর্ষকারীরা ছঙ্গভঙ্গ হয়ে যে যার মতো পালিয়ে যায়।
এঘটনার প্রেক্ষিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে সংঘর্ষের ঘটনার সাথে জড়িত ৮জনকে আটক করে। আটককৃত ব্যক্তিরা হলেন- আল-আমিন, আব্দুল মালেক, হুমায়ুন কবির, আব্দুস ছোবাহান, ওমর আলী, রহিম হোসেন, শিরিন বেগম ও সোহেনা বেগম।
দু’পক্ষের মধ্যে প্রায় ২ঘন্টাব্যাপী ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে ইটপাথর ও দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে ২ মহিলা পুলিশ ও শিশুসহ ১৫ জন আহত হয়। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
অপরদিকে ছাতক উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়ন পরিষদে সরকার কর্তৃক বরাদ্দকৃত এলজিএসপির কাজের ভাগাভাগি নিয়ে ২নং ওয়ার্ড সদস্য ইলিয়াস আলীর সাথে ৯নং ওয়ার্ড সদস্য এমরান মিয়া মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়। এসময় চেয়ারম্যান আব্দুল মছব্বির তাৎক্ষনিক ভাবে দুজনের বিষয়টি সমাধান করে দেওয়ার পরও দু’পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এই সংঘর্ষের ঘটনায় লাটিসুটা ও চেয়ারের আঘাতে ইউপি সদস্য ইলিয়াস আলীসহ ৫জন আহত হয়।
আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় ইউপি সদস্য ইলিয়াস আলীকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে রাতেই সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। আর অন্যান্য আহতরা স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা নিয়েছে বলে জানা গেছে।
পৃথক সংঘর্ষের ঘটনার খবর পেয়ে ছাতক-দোয়ারাবাজার জোনের এএসপি (সার্কেল) বিল্লাল হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
দোয়ারাবাজার থানার ওসি দেবদুলাল ধর ও ছাতক উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুল মছব্বির পৃথক সংঘর্ষের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, পৃথক সংঘর্ষের ঘটনার প্রেক্ষিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পৃথক ভাবে প্রক্রিয়া চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর