• বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ১১:৪১ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
গৌরীপুরে ছাত্র ইউনিয়নের মশাল মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে বসন্ত উৎসবের আয়োজন বিজিবি মহাপরিচালকের শ্যামনগর থানা ও শিকারী পচাব্দী গাজীর বন্দুক পরিদর্শন শ্যামনগর দেবীপুর কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শনে বিভাগীয় পরিচালক স্বাস্থ্য বিভাগ চুনারুঘাটের সাতছড়ি থেকে ১৮ টি রকেট লাঞ্চার উদ্ধার নাটেরে প্রশাসনের সহায়তায় বিক্রি হওয়া শিশুকে ফিরে পেলেন মা ফুলজান সাতক্ষীরায় হঠাৎ করেই বাস চলাচল বন্ধ, ভোগান্তিতে যাত্রীরা ধর্মপাশায় ইউপি সদস্য আবুল কাশেম মহত উদ্যোগে রাস্তা মেরামত  নাটোরে গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকান্ড বন্ধে বকুল এমপি’কে সর্তক করে চিঠি দিয়েছে জেলা আ’লীগের সেক্রেটারি  সুনামগঞ্জে ৫শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

আজ ১১ ডিসেম্বর হিলি মুক্ত দিবস

মো: কুদ্দুস আলী খান হিলি (দিনাজপুর)
প্রকাশ হয়েছে : শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২০ | ৫:১৫ pm
                             
                                 

আজ ১১ ডিসেম্বর ভারত সীমান্তবর্তী হিলি শত্রু মুক্ত দিবস। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ যুদ্ধ সংঘটিত হয় ভারত সীমান্তবর্তী হিলিতে। ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর ভারত সরকার বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারকে সমর্থনের পর ভারতীয় মিত্রবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধারা পাক সেনাদের বিরুদ্ধে স্থল ও আকাশ পথে এক যোগে হামলা চালায়। প্রচন্ড যুদ্ধের পর ১১ ডিসেম্বর ৭নং সেক্টরের আওতায় ভারত সীমান্তবর্তী হিলি শত্রুমুক্ত হয়।

সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী বলেন, ভারতীয় মিত্রবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধা এবং পাক সেনাদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধে ৩৪৫ জন ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সদস্য ও দেড়শতাধিক নাম না জানা মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। পক্ষান্তরে নিহত হয় তিন শতাধিক পাক সেনা। এছাড়াও অনেক পাক সেনা এখানে আত্মসমর্পণ করে। উদ্ধার হয় পাক সেনাদের ব্যবহৃত ৩০টি ট্যাংকসহ বিপুল সংখ্যক ভারী অস্ত্র ও গোলাবারুদ।

শহীদ ভারতীয় মিত্রবাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের স্বরণে সীমান্তবর্তী মুহাড়াপাড়া এলাকায় একটি সম্মুখ সমর স্মৃতিস্তম্ভে নির্মান করা হয়েছে। প্রতিবছর এই স্মৃতিস্তম্ভে বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে ফুল দিয়ে শহীদের শ্রদ্ধা ও স্বরণ করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 22
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর