• রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০১:৪২ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
ঘাটাইলের দেওপাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হেপলুর উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ মাগুরায় করোনা প্রতিরোধে এমপি শিখরের অনুদানে মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ শ্যামনগরে দুই দিনে করোনা টিকার ২য় ডোজ গ্রহণ করলেন ২১০জন শ্যামনগরে মোবাইলকোটে প্রায় আটহাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান মাদারীপুরে মেজর ও মেরিন অফিসার পরিচয় দিয়ে প্রতারনার সময় ৩জন আটক করোনায় মাদারীপুরের শিবচরে এক ব্যাক্তির মৃত্যু মণিরামপুরে করোনা নির্দেশনা না মানায় জরিমানা তাহিরপুরে বালু উত্তোলনে বাঁধা দেয়ায় বালু খেকোদের মারপিটে এক ব্যক্তি আহত ‘২০০ টাকার জন্য খুন করেছি’ ঘাতক বন্ধুর স্বীকারোক্তি সাতক্ষীরায় দিন-দুপুরে বন্ধুকে জবাই করে হত্যা

আশাশুনিতে খোলপেটুয়া নদীর বেঁড়িবাঁধ ভেঙে তিন গ্রাম প্লাবিত

শেখ আবু মুছা, সাতক্ষীরা
প্রকাশ হয়েছে : বুধবার, ৩১ মার্চ ২০২১ | ১২:২২ am
                             
                                 

আশাশুনিতে খোলপেটুয়া নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়ে ৫টি পয়েন্টে রিং বাঁধ ভেঙ্গা কয়েকটা গ্রাম প্লাবিত হয়েছে ।
মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খোলপেটুয়া নদীতে জোয়ারের পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পায় এতে আশাশুনি টু দয়ারঘাট সড়কের উপর অস্থায়ী রিংবাঁধ ৫টা পয়েন্টে ভেঙ্গে আশাশুনি সদরের দয়ারঘাট,জেলেখালি গ্রাম সহ কয়েকটা গ্রাম প্লাবিত হয় ।

অপর দিকে প্রতাপনগর হরিষখালি ভেড়িবাঁধ অভারফো¬ হয়ে ভেতরে পানি প্রবেশ করছে। কুড়িকাউনিয়া, রুইয়ারবিল, শুভদ্রাকাটি সহ উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের ভেড়িবাাঁধ ভেঙ্গে যে কোন মুহুত্তে এলাকার শত শত মৎস্য ঘের ও গ্রাম প্লাবিত হতে পারে। আম্পানে ভেঙে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্থ ছোট ছোট কয়েকটি পয়েন্ট কয়েক মাস ধরে বাঁধতে পারেনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা। এ নিয়ে এলাকার স্থানীয়দের মাঝে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা ও ক্ষোভের অন্ত নেই। শীতের সময় কাজ হবে করে করে আবার বর্ষা মৌসুম শুরু হয়েছে। কিন্তু বাঁধ বাঁধার দৃশ্যমান কোন প্রক্রিয়া এখনো পর্যন্ত দেখা যায়নি।এরপর সবাই এগিয়ে এসে ক্ষতিগ্রস্থ রিং বাঁধ যেনতেন ভাবে মেরামত করে জোয়ারের পানি আটকে দিয়েছেন। এরমধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোনো কর্মকর্তা এলাকায় আসেননি বা খবর নেননি বলে জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন।

এব্যাপারে প্রতাপনগর ইউপি চেয়ার জাকির হোসেন জানান, বাঁধ গুলো বাঁধতে না পারলে রাতের জোয়ারে পানি ঢুকে আরো গ্রাম প্লাবিত হতে পারে ।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান স.ম সেলিম রেজা মিলন জানান, এখানে ভাঙ্গবে আমারা আরো আগে থেকে জানতাম।আমি বার বার পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্ধোর্তন কর্মকর্তাদের বলেছি কিন্তু তারা বিষয়টি গুরত্ব দেননি। গতকালকে ও আমি স্থানীয় লোক জননিয়ে ভেড়ি বাঁধে কাজ করেছি।আজ অতিরিক্ত জোয়রের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রায় পাঁচটি পয়েন্টে রিং বাঁধ ভেঙ্গে আমার ইউনিয়নে কয়েকটা গ্রামে পানি প্রবেশ করছে।

আশাশুনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল হুসাইন খাঁন জানান, বিষয়টি জানার সাথে সাথে আমি সহ আমার এসিল্যান্ড সেখানে গিয়েছি । বিষয়টি ডিসি স্যার সহ উদ্ধোর্তন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে আমরা বাঁধ আটকানোর কাজ শুরু করেছি

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 7
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর