• বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:৪৭ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম

গৌরীপুরে বাল্য বিবাহ, মাদকাসক্তি ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহবাণ

ওবায়দুর রহমান, গৌরিপুর, ময়মনসিংহ
প্রকাশ হয়েছে : শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০ | ৩:০৪ pm
                             
                                 

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ১নং মইলাকান্দা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের কাউরাট চকবাড়িতে ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো: আলী হায়দার এর সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) “সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদকাসক্তি ও বাল্য বিবাহ” নিরোধে উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসান মারুফ রাহাত।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসান মারুফ রাহাত বলেন, ‘সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদকাসক্তি ও বাল্য বিবাহ নির্মূল করতে সমাজের সবার দায়িত্ব পালন করতে হবে। সমাজের সবাই সচেতন না হলে এই ভয়াবহ ব্যাধি দেশ থেকে উচ্ছেদ করা যাবে না। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে সব সময় সজাগ থাকতে হবে। খারাপ মানুষদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। সন্তানরা কে কোথায় যাচ্ছে, কি করছে, কাদের সাথে মিশছে খেয়াল রাখতে হবে। মাদকের ভয়াবহ কুফল সম্পর্কে সমাজের সবাইকে সচেতন করতে হবে। মাদক নির্মূলে একে অপরের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। কোন অবস্থাতেই মেয়েদের বাল্য বিবাহ দেয়া যাবে না।

বাল্য বিবাহের ক্ষেত্রে আমাদের সমাজে বেশির ভাগ সময় যেসব অযুহাত দেয়, তা কোন অবস্থাতেই গ্রহণযোগ্য নয়। বেশির ভাগ অভিভাবকরা বলে থাকেন, মেয়ে ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে, ভরণ-পোষনের সামর্থ্য নেই’ তাই বাল্য বিয়ে দিচ্ছেন। সরকার ও প্রশাসন এখন এসব বিষয়ে অনেক কঠোর, কোথাও কোন মেয়ে ইভটিজিংয়ের শিকার হলে তা অবশ্যই প্রশাসনকে জানাবেন, জাতীয় জরুরী সেবায় কল করবেন।

সামাজিকভাবে ইভটিজারদের প্রতিহত করতে হবে। আর দারিদ্রতার জন্য কোন মা-বাবা সন্তানকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারে না, সন্তান জন্ম দিয়ে কষ্ট করে লালন পালন করে সেই মেয়েকে আর মাত্র কয়েকটা বছরের জন্য বিপদের মুখে ঠেলে দিবেন না, ১৮ বছরের পূর্বে মেয়েরা শারীরিক ও মানসিকভাবে সংসারের জন্য তৈরি হয় না তাই ১৮ বছর পূর্ণ হলে মেয়ের বিয়ে দিবেন।’

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন গৌরীপুর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনিকা পারভীন, কাউরাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) শাহনাজ বেগম, গোবিন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লিটন ভৌমিক, ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুণ-অর-রশিদ, ডা. মিলন হক, মিরাশ উদ্দিন, ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো: সেলিম মিয়া, জাবেদ আলী, বাবুল মিয়া, মালতি রাণী, সাজেদা খাতুন প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 10
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর