• রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০২:৪৪ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম

টিকা কেন্দ্র গুলোতে উপচে পড়া ভিড়, নেই স্বাস্থ্যবিধি!

মো: সকেল হোসেন, আক্কেলপুর, জয়পুরহাট
প্রকাশ হয়েছে : শনিবার, ৭ আগস্ট ২০২১ | ৬:২২ pm
                             
                                 

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে একটি পৌরসভা ও পাঁচটি ইউনিয়নে একযোগে করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু করেছে উপজেলা প্রশাসন। তবে কিছু টিকাদান কেন্দ্রে উপচে পড়া ভিড় ও মানা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি। তবে প্রশাসন বলছে, প্রতিটি টিকা কেন্দ্র আসা মানুষদের মাইক দিয়ে সচেতন করে টিকা নিতে বলা হচ্ছে।

এ উপজেলায় ৬টি অস্থায়ী কেন্দ্র চীনে সিনোফার্ম টিকার প্রদান করা হচ্ছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ৬শ করে টিকা দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে এ উপজেলায় এক দিনে মোট ৩ হাজার ৬শ টিকা দেওয়া হয়। জানা গেছে, প্রতিটি কেন্দ্র দুপুর ১টায় মধ্যে সকল টিকা শেষ হয়ে গেছে।

যেসব কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হচ্ছে, আক্কেলপুর পৌরসভার অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র আক্কেলপুর বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, রুকিন্দীপুর ইউনিয়নের ভান্ডারীপাড়া সরকারী প্রথমিক বিদ্যালয়, সোনামুখী ইউনিয়নের গণিপুর জাফরপুর উচ্চ বিদ্যালয়, তিলকপুর ইউনিয়নের তিলকপুর উচ্চ বিদ্যালয়, রায়কালী ইউনিয়নের রায়কালী উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং গোপীনাথপুর ইউনিয়নে গোপীনাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ওই অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র করা হয়েছে।

সরেজমিনে শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার কয়েকটি টিকাদান কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে, করোনাভাইরাসের টিকা দিতে আসা লোকজন লাইনে দাড়িয়ে রয়েছে। কেন্দ্রে গুলোতে টিকা নিতে আসা আবেদনকারীরা কোন রকম সামাজিক দূরত্ব মানছে না। গাদাগারি করে এক জনের সাথে আরেক জন গা লেগে লেগে দাড়িয়ে আছে। আবার কারও মুখে মাস্ক নেই, কারও মাস্ক আবার নাকের নিচে। এমন কী, করোনা উপর্সগ নিয়েও অনেক বয়োজ্যেষ্ঠ মানুষকে লাইনে দাঁড়িয়ে অপক্ষো করে ভ্যাকসিন নিয়েছে। প্রশাসনের লোকজন টিকা নিতে আসা লোকজনদের সামাজিক দূরত্ব মানতে বল্লেও মানছে না কেউ সামাজিক দূরত্ব।

এতে করে করোনা ঝুঁকি আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে সচতেন মহল। অথচ যে কোনও ধরণের ভিড় ও জনসমাগম করোনার এই ঊর্ধ্বগতির সময় নিষিদ্ধ করার কথা বারবার বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও স্বাস্থ্য অধিদফতর।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টিকা নেওয়া কয়েকজন বলেন, প্রথম দিকে টিকা নেওয়ার ইচ্ছে ছিলো না অনেকেই নিচ্ছে এবং ক্ষতি হচ্ছে না বরং উপকার হচ্ছে নিয়েছি সেইজন্য টিকা নিয়া। কিন্তু কেন্দ্র অনেক মানুষ সেখানে স্বাস্থ্য বিধি মানা হয়নি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম হাবিবুল হাসান জানান, “টিকা প্রদানের প্রথম দিনে ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে সাধারণ মানুষ টিকা নিয়েছে। যার জন্য দুপুরের মধ্যেই টিকা শেষ হয়ে গেছে। টিকা নিতে আসা লোকের সাথে আরো কিছু লোকজন দেখতে আসছে যার জন্য কেন্দ্র ভির ছিল, তবু আমরা মাইকে সকলকে সচেতন ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে টিকা নিতে বলেছি”।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর