• শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৮:০২ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
রামগঞ্জে আগুনে ক্ষতিগ্রস্থ ১৫ পরিবারের পাশে কেন্দ্রীয় যুবদল নেতা ইমাম হোসেন শাহজাদপুরে শুরু হয়েছে ঐতিহ্যবাহি বাউত উৎসব ফুলবাড়িয়ার সকল মুক্তিযোদ্ধার কবর পাকা করে দিবেন আওয়ামীলীগ নেতা তপন তালুকদার ছাতকে খাল খনন প্রকল্পে অনিয়মের অভিযোগ চমেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত রাজনীতি নিষিদ্ধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের দৌরাত্ম্য বেড়েছে মণিরামপুর হাসপাতালে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসাবে জনপ্রিয়তার শীর্ষে মোহাম্মদ জাবেদ হোসেন কেশবপুরে পিকনিকের বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে শিশুর মৃত্যু জামালপুর হেল্পলাইনের ১০ হাজার মেম্বার পূর্তি উদযাপন আশাশুনিতে নবাগত ইউএনও’র যোগদান

নানা সমস্যায় জর্জরিত ৫০ শয্যা মণিরামপুর উপজেলা হাসপাতাল

আনোয়ার হোসেন, (মনিরামপুর) যশোর
প্রকাশ হয়েছে : শনিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৫:০০ pm
                             
                                 

যশোরের মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৫০ শয্যায় উন্নিত হয়েছে সাত বছর আগে। হাসপাতালটির বেড সংখ্যা বাড়লেও বাড়েনি সেবার মান। প্রয়োজনীয় ওষুধ, চিকিৎসক ও স্টাফ না থাকায় উন্নতি হয়নি চিকিৎসা সেবার। ৫০ শয্যাতো দূরের কথা ৩০ শয্যার লোকবলেরই সংকট দীর্ঘদিনের। এখানে নেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ, এক্সরে আল্ট্রাসনোর ব্যবস্থা।
মণিরামপুর হাসপাতালের আল্ট্রাসনো মেশিনটি বিকল দীর্ঘদিন। এক্সরে মেশিন সচল থাকলেও নেই টেকনিশিয়ান। সেবা নেই ডেল্টাল ইউনিটেও। প্যাথলজি বিভাগে ২০ প্রকার পরীক্ষার সুযোগ থাকলেও সবগুলো জোটেনা। সার্জিক্যাল ও অজ্ঞান করার চিকিৎসক না থাকায় গর্ভবতীদের সিজারের ব্যবস্থা নেই নিয়মিত। জরুরি বিভাগে নেই পর্যাপ্ত লোকবল। ফলে বাইরের মানহীন ক্লিনিক বা ডায়াগনস্টিক সেন্টারই রোগীদের ভরসা।
মণিরামপুরের প্রায় পাঁচলাখ মানুষের সেবায় ২০১৫ সালের দিকে উপজেলা হাসপাতালটির বেড সংখ্যা ৩০ থেকে বেড়ে ৫০ শয্যায় উন্নিত হয়। এরপর রোগী ভর্তি ও খাবারের অনুমতি মিললেও এখানে উপযোগী লোকবল নিয়োগ দেওয়া হয়নি। ১০জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও নেই একজনও। ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রসহ ২৪ জন মেডিকেল অফিসারের মধ্যে রয়েছে ১৫ জন। আবাসিক মেডিকেল অফিসারের পদ খালি দীর্ঘদিন। ৩০জন নার্সের মধ্যে নেই ১০ জন।
এই হাসপাতাল পরিচালনায় রয়েছে নানা অনিয়ম। ১৫ জন চিকিৎসকের মধ্যে নানা অজুহাতে প্রতিদিন ৫-৭ জন থাকেন অনুপস্থিত। ১৪ জন সেকমোর প্রত্যেকের সপ্তাহে দুই দিন কমিউনিটি ক্লিনিকে দায়িত্ব থাকলেও সেখানে যান না তারা। এছাড়া বর্হিবিভাগ ও ভর্তি রোগীদের সেবাপ্রাপ্তি নিয়েও রয়েছে নানা অভিযোগ। ভর্তি হওয়া রোগীদের প্রয়োজনীয় ওষুধ হাসপাতাল থেকে না দিয়ে বাইরে থেকে কেনান চিকিৎসক।
শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, শিশু ওয়ার্ডে ডায়রিয়া ও ঠান্ডাজনিত রোগে কয়েকটি শিশু ভর্তি রয়েছে। সাত মাসের শিশু মাহিদ ইসলামের মা রিয়া খাতুন বলেন, পাতলা পায়খানার কারণে শুক্রবার দুপুরে ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। ২৪ ঘন্টা না যেতে চার প্রকারের ওষুধ কিনতে হয়েছে। এই ওয়ার্ডের ভিতরের পরিবেশ নোংরা। বাথরুমের লাইট নষ্ট বেশ কয়েকদিন। এছাড়া বর্হিবিভাগে রোগীর চাপ থাকলেও বেলা ১১টার মধ্যে শেষ হয়ে যায় গ্যাসের ট্যাবলেট। রোগীদের এন্টাসিড বড়ি নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়।
মোকমতলা খানপুর গ্রামের জাহানারা বেগম বলেন, গত সপ্তাহে একবার দাঁত তুলতে আইছি; হয়নি। আবার আসলাম। দাঁত তুলে দিচ্ছে না ডাক্তার। ডেন্টাল ইউনিটে দায়িত্বরত প্যাথলজিস্ট আব্দুর রউফ বলেন, একমাস ধরে ডাক্তার নেই। ওষুধপত্র ও পর্যাপ্ত মালামাল না থাকায় রোগীদের ঠিকমত সেবা দেওয়া যাচ্ছে না।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. শুভ্রারানী দেবনাথ বলেন, ৫০ শয্যা হাসপাতাল হলেও খাবার ছাড়া অন্য কিছু পাইনি আমরা। আমি একবার চাহিদাপত্র স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পাঠিয়েছি। আগে যারা দায়িত্বে ছিলেন তারাও কাজ করেছেন। সাড়া মেলেনি। আল্ট্রাসনো মেশিন দীর্ঘদিন নষ্ট। এক্সরে মেশিন ভাল আছে কিন্তু টেকনিশিয়ান নেই। ৩০ শয্যা হাসপাতালের জন্য চারজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকার কথা; একজনও নেই। সরবরাহ অনুযায়ী রোগীদের ওষুধ দেওয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 1
    Share


এই বিভাগের আরো খবর