• শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন নিলেন শেখ হাসিনা লালপুরে প্রতীক বরাদ্দের পর জমে উঠেছে লালপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন বাগেরহাটে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর পেয়ে খুশি মুক্তিযোদ্ধা রতন বিশ্বাস বোয়ালমারীতে ফসলি জমি থেকে মাটি কাটায় ইটভাটাকে জরিমানা সুন্দরগঞ্জে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার বোয়ালমারীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হামলা আহত ১ শ্যামনগরে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ জাতীয় দিবস উদ্যাপনে প্রস্ততি সভা গৌরীপুরে কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুল ইসলামের বিদায় সংবর্ধনা সিংগাইর কলেজের ভিপি মিরু হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন গৌরীপুরে নব-নির্বাচিত পৌর মেয়র সৈয়দ রফিককে সংবর্ধনা

ফুলবাড়ীয়ায় মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান রক্ষার্থে স্মারকলিপি

সাইফুল ইসলাম তরফদার, ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ)
প্রকাশ হয়েছে : শনিবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২১ | ৭:০৬ pm
                             
                                 

সাইফুল ইসলাম তরফদার ফুলবাড়ীয়াপ্রতিনিধি: মুক্তিযোদ্ধাদের জীবনের শেষ প্রান্তে এসে হেস্তনেস্ত ও মান-ইজ্জত ক্ষুন্ন করা থেকে বিরত থাকার জন্য ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া উপজেলার বীরমুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই এর বিরুদ্ধে উপজেলা ইউএনও এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করেন।
গতকাল শনিবার সকালে উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবু বকর ছিদ্দিক এর নেতৃত্বে উপজেলা নির্বাহী অফিস আশরাফুল ছিদ্দিক এর হাতে স্মারক লিপি তুলে দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা ওসমান গনি, এমদাদুল হক, আঃ জব্বার, ইমান আলী, আব্দুর রাজ্জাক সরকার, জালাল ফকির, আঃ রউফ, আঃ কাদের, মিজানুর রহমান, আনোয়ার হোসেন, মোসলেম উদ্দিন, আঃ মালেক, মকবুল হোসেন, নওশের আলী, নূরুল ইসলাম, ময়েজ উদ্দিন, হাছান আলী, জসিম উদ্দিন, আনোয়ার হোসেন খসরু, আঃ মান্নান প্রমুখ।
স্মারক লিপিতে জানান, মহান পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের পর যার যা কিছু আছে, তাই নিয়ে শত্রæর মোকাবেলা করার জন্য মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করি। দীর্ঘ ৯ মাস বাড়ী-ঘর, মাতা-পিতা, ভাই-বোন ছেড়ে দেশের আনাচে-কানাচ্ছে গেরিলা ও সম্মুখ যুদ্ধ করেছি। ৩০ লক্ষ শহীদ ও ২ লক্ষ মা-বোনদের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা দেশকে স্বাধীন করেছি। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল এর মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছি। সকল তালিকায় আমরা অন্তর্ভুক্ত ছিলাম। ২০০২ সালে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রালয় গঠিত হওয়ার পর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উপজেলা ও জেলা যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক ২০০৫-০৬ সালে জাতীয় কমিটির সুপারিশক্রমে গেজেট প্রকাশিত হয়। ২০১৭ জা.মু.কা নির্দেশ মোতাবেক ৭ সদস্য কমিটির মধ্যে উপজেলায় চূড়ান্তভাবে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই গৃহিত হয়। ইতিমধ্যে অনেক মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুবরণ করেছে। বার বার যাচাইয়ের কারণে বীরমুক্তিযোদ্ধার সম্মানহানী হচ্ছে। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জা.মু.কা) এর নির্দেশ মোতাবেক ৩০ জানুয়ারি/২১ পুনরায় যাচাই-বাছাই শুরুর নির্দেশের কারণে মুক্তিযোদ্ধারা হেস্তনেস্ত হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান রক্ষার্থে যাচাই-বাছাই থেকে অব্যাহতির দাবী জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 5
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর