• বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ০২:২৬ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে লক্ষ্মীপুরে বৃক্ষরোপণ ও ঢেউটিন বিতরণ কেক কাটা ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত স্বেচ্ছাসেবকলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে গৌরীপুরে এতিম শিশুদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ ধর্মপাশায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিনামুল্যে মাস্ক বিতরণ রাজারহাটে সেনাবাহিনীর নিজস্ব রেশন দিয়ে সুস্থ-অসহায়দের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ডাসার উপজেলা প্রেসক্লাবে মিজান সভাপতি, জাফরুল সম্পাদক নির্বাচিত ঘোড়াঘাটে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ ও ঢেউটিন বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে স্বেচ্ছাসেবকলীগের শ্রদ্ধা নিবেদন বকশীগঞ্জে করোনার সংক্রমণ রোধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম অব্যাহত শ্যামনগরে অর্ধলক্ষাধিক টাকার চিংড়ী বিনষ্ট

বীরগঞ্জে শর্ত অমান্য করে বালু উত্তোলন

প্রদীপ রায় জিতু, দিনাজপুর
প্রকাশ হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ | ৮:৪২ pm
                             
                                 

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার আলোকঝাড়ি গ্রাম ও বীরগঞ্জের শতগ্রাম ইউনিয়নের গড়ফতু গ্রামের মাঝামাঝি বোলদিয়া বালুমহাল শর্ত সাপেক্ষে ইজারা দিয়েছে জেলা প্রশাসন। সেসব শর্ত না মেনে বালুমহালের বাইরে থেকে খননযন্ত্র দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। বালুমহালের সীমানা ২৫ একর হলেও বালু তোলা হচ্ছে ১০০ একরের বেশি জায়গাজুড়ে।
বালুমহাল ইজারা নিয়েছেন নয়ন কনস্ট্রাকশন নামে একটি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী নুরে আলম সিদ্দিকী। তিনি চিরিরবন্দর উপজেলার নশরতপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান। বালুমহাল ইজারায় জেলা প্রশাসনের দেওয়া শর্তগুলোর মধ্যে অন্যতম খননযন্ত্র দিয়ে বালু উত্তোলন ও ১০ চাকার ডাম্পট্রাকে বালু পরিবহন করা যাবে না। তবে বোলদিয়া বালুমহালে এ শর্তগুলো মানা হচ্ছে না। ডাম্পট্রাকে বালু বহন করা হয় রাতের অন্ধকারে।
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, নির্ধারিত এলাকার বাইরের অংশজুড়ে বালু তোলায় গতিপথ পাল্টে যাচ্ছে আত্রাই নদের। খানসামার আলোকঝাড়ি গ্রামের পূর্ব পাশে আত্রাই নদ। বোলদিয়া ঘাট বালুমহাল ঘুরে দেখা যায়, এক কিলোমিটারের কম জায়গায় আটটি খননযন্ত্র লাগিয়ে পাইপের সাহায্যে নদের বালু নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বীরগঞ্জ সীমান্তে। ৮ থেকে ১০ ফুট পর্যন্ত উঁচু ঢিবি করে মজুত করা হচ্ছে বালু। এতে বীরগঞ্জ সীমান্তে আত্রাই নদের চর উঁচু হওয়ায় খানসামা সীমান্তে পাড় ভাঙছে। খানসামা সীমান্তে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্মিত নদী রক্ষা বাঁধও পড়েছে হুমকির মুখে।
বীরগঞ্জের গড়ফতু গ্রামের আবদুল মতিন (৮৪) বলেন, তিনি নিজে নদীতে অনেক জমি বিলীন হয়ে যেতে দেখেছেন। বালু উঠিয়ে জমিয়ে রাখার কারণে প্রায় দুই হাজার একর জমিতে বর্তমানে কৃষকেরা আবাদ করতে পারছেন না। অথচ একসময় নদীর চরে পেঁয়াজ, রসুন, মিষ্টিকুমড়ার আবাদ হতো।
স্থানীয় যুবক আশরাফুল (৩২) বলেন, নদ থেকে বালু পরিবহনের যে রাস্তা, তার দুই পাশে তাঁদের জমি আছে। চলতি মৌসুমে কয়েক বিঘা জমিতে আবাদ করতে পারেননি। কারণ, ধুলা জমে ফসল নষ্ট হয়ে যায়। ডাম্পট্রাক দিয়ে বালু বহন করায় এ ধুলার তৈরি হয়। শতগ্রাম ইউনিয়নের ঝাড়বাড়ি শান্তির মোড় থেকে আত্রাই নদ পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার সরু রাস্তা। রাস্তার উভয় পাড়ে গড়ফতু, বোলদিয়াপাড়া, ফুলিননগর গ্রামে প্রায় পাঁচ হাজারের বেশি মানুষের বাস। সরু রাস্তাটিতে ধুলার স্তর জমায় পিছলে পড়ার উপক্রম হয় মোটরসাইকেলসহ ছোট ছোট যানবাহনের।
স্থানীয় লোকজন জানান, গত দুই মাসে এ সড়কে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন চারজন। এর মধ্যে সাত বছর বয়সী এক শিশুর ট্রাক্টরচাপায় নিহতের ঘটনা আছে। গ্রামীণ রাস্তায় ডাম্পট্রাক চলাচল বন্ধ করতে স্থানীয় লোকজন বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, বালুঘাট থেকে প্রতিদিন ২৫০ থেকে ৩০০টি ট্রাক্টরে করে বালু বহন করা হয়। ডাম্পট্রাক চলে অর্ধশতাধিক। তবে বালুঘাটের এক ম্যানেজার নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সারা দিনে ১০০ এর মতো ট্রাক্টর চলে আর ডাম্পট্রাক চলে তিন থেকে চারটি।
চলতি বছরের ৮ মার্চ দিনাজপুর জেলা প্রশাসক ও জেলা বালুমহাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি খালেদ মোহাম্মদ জাকি স্বাক্ষরিত ৪৬টি শর্ত দিয়ে বোলদিয়া বালুমহালসহ ২০টি বালুমহাল ইজারা দেওয়া হয়। বোলদিয়া বালুমহালটির সরকারি ইজারামূল্য ধরা হয় ৭ লাখ ৮ হাজার ৮২৬ টাকা। ৯৬ লাখ টাকায় ইজারা নেন নুরে আলম সিদ্দিকী।
নুরে আলম সিদ্দিকীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, তিনি কোনো শর্ত ভাঙছেন না। এ ছাড়া নির্ধারিত এলাকা থেকেই বালু উত্তোলন করছেন। ইজারা নিতে ব্যর্থ হওয়া ব্যক্তি ও স্থানীয় লোকজন মিলে নানা অভিযোগ করছেন।

স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের বিষয়ে বীরগঞ্জের ইউএনও আব্দুল কাদের বলেন, ইজারার শর্ত অমান্য করায় ইজারাদারকে ইতিমধ্যে দুই দফায় জরিমানা করে সতর্ক করা হয়েছে। ঘাট এলাকায় প্রশাসনের নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। যদি পুনরায় শর্তভঙ্গের ঘটনা ঘটে, তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর