• রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
আলফাডাঙ্গায় স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে মামলা, গ্রেপ্তার ১ ইবি শাখা’র আলোর দিশা বাংলাদেশ পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা স্বচ্ছতা গ্রুপের পক্ষ থেকে বেকার যুবককে চটপটি বিক্রির ভ্যানগাড়ি প্রদান লক্ষ্মীপুরে সেলাই মেশিন ও রিকশা বিতরণ মতলবে পুলিশ ও জনসাধারণের মাঝে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ বিশ্বম্ভরপুরে মাঠ দিবস ও রিভিউ ডিসকাশন অনুষ্ঠিত শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং সেন্টারের’ নির্মাণকাজ উদ্বোধন করলেন প্রতিমন্ত্রী পলক শাহজাদপরে স্বাস্থ্য সহকারীদৈর কর্ম বিরতি বকশীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের কর্ম বিরতিতে স্বাস্থ্য সহকারীরা কর্ণফুলী নদীর নাব‍্যতা বাড়াতে সমীক্ষা পরিচালনার উদ্যোগ

মণিরামপুরে ইউএনও এসিল্যান্ড অফিসের কর্মচারীদের কর্মবিরতি, ভোগান্তি

আনোয়ার হোসেন, (মনিরামপুর) যশোর
প্রকাশ হয়েছে : সোমবার, ১৬ নভেম্বর ২০২০ | ৩:২৩ pm
                             
                                 

পদ পরিবর্তন ও বেতন গ্রেড উন্নীতকরণের দাবিতে সারা দেশের সাথে একযোগে যশোরের মণিরামপুরে ইউএনও এবং এসিল্যান্ড অফিসের তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারীদের পূর্ণদিবস কর্মবিরতি চলছে।

রোববার (১৫ নভেম্বর) থেকে তাদের কর্মবিরতি শুরু হয়েছে। ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত টানা ১৫ দিন চলবে এই আন্দোলন।

এদিকে, গুরুত্বপূর্ণ দুই দপ্তরে কর্মচারীদের কর্মবিরতি চলায় বিপাকে পড়েছেন উপজেলার দূরদূরান্ত থেকে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষ।
সোমবার (১৬ নভেম্বর) দুপুর ১২ টার দিকে সরেজমিন উপজেলা চত্বরে গিয়ে দেখা যায়, ইউএনও অফিসের নিচে দুই অফিসের কর্মচারীরা চেয়ার পেতে বসে কর্মবিরতি পালন করছেন। তাদের পাশেই দাঁড়িয়ে রয়েছেন দুই সেবাগ্রহীতা।
এসময় ইসমাইল হোসেন নামে একব্যক্তি জানান, তিনি মাহমুদকাটি গ্রাম থেকে জমির নামপত্তনের আবেদন করতে এসেছেন। তার স্ত্রী ক্যান্সারে আক্রান্ত। জমি বিক্রি করে তাকে চিকিৎসা করাতে ভারতে নেবেন। কিন্তু কর্মচারীদের আন্দোলন চলায় কোন সেবা পাননি তিনি।
চাকলা গ্রাম থেকে আসা পারভিনা বেগম জানান, পথের সমস্যা নিয়ে তিনি ইউএনওর কাছে এসেছেন। ইউএনও তাকে আবেদন করার পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু কর্মচারীরা তাকে আবেদন করতে দিচ্ছেন না।

আন্দোলনকারীদের মধ্যে ফয়সাল হোসেন বলেন, ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করব। এরপর পাঁচ ডিসেম্বর ঢাকা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে পরবর্তী আন্দোলনে যাব আমরা। এরমধ্যে আমরা অফিসের কোন কাজ করব না। সেবা নিতে এসে কেউ ভোগান্তি পেলে আমাদের কিছু করার নেই। আমরা পেশার সাথে বেইমানী করতে পারব না।

ইউএনও অফিসের সিএ সন্তোষ কুমার বলেন, ৩২ বছর ধরে একই পদে চাকরি করছি। কোন পদোন্নতি পাইনি।

আতিয়ার রহমান নামে একজন বলেন, ৩৯ বছরের চাকরি জীবনে দুইবছর আগে প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছি কিন্তু বেতন গ্রেডে কোন পরিবর্তন আসেনি।

আন্দোলন ও জনগণের ভোগান্তির ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউএনও সৈয়দ জাকির হাসান বলেন, সচিবালয় এবং জেলাপ্রশাসকের কার্যালয়সহ সব উপজেলায় একইভাবে কর্মবিরতি চলছে। কর্মবিরতি শেষ না হওয়া পর্যন্ত অফিসের কার্যক্রম ভালভাবে চালানো যাচ্ছে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 1
    Share


এই বিভাগের আরো খবর