• রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৮ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম

মাদারীপুরে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ,আটকেরপড় মুচলেকা দিয়ে মুক্তি

ম.ম.হারুন অর রশিদ, মাদারীপুর
প্রকাশ হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১ | ১০:৫৬ pm
                             
                                 

মাদারীপুরে স্কুল পড়ুয়া ছাত্র, ছাত্রীদের সরকারের প্রদান কৃত উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ করার দায়ে এক জনকে আটক করা হয়েছে।কেউমামলা না করায় ও টাকা ফেরত দেওয়ার অঙ্গিকার করায় মুচলেকা দিয়ে মুক্তিপান তিনি। ঘটনাটি গতকাল (১৬জুন বুধবার) বিকেলে কালকিনিতে ঘটে।
পুলিশ জানান,খবর পাই পশ্চিম বাশগাড়ি বাজারে এক দোকানদারকে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ করার জন্য জনগন অবরুদ্ধ করে রেখেছে। ঘটনা স্থানে গিয়ে তাকে উদ্ধার করি। আটক ইসমাইল হোসেন মনা কালকিনি উপজেলার বাশগাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম বাশগাড়ি গ্রামের মৃত জনাব আলী হাওলাদারের ছেলে ও পশ্চিম বাশগাড়ি বাজারের দোকানদার।
অভিভাবকেরা জানান, এ বাজারে মনার একটি মাত্র টাকা লেনদেনের দোকান থাকায় তার কাছে সবাই টাকা লেনদেন করার জন্য আসেন । এ সুযোগে সে সবার টাকা মেড়ে খাচ্ছে। সরকারের প্রদান কৃত উপবৃত্তির টাকা মোবাইলের মাধ্যমে আসলে বাজারের দোকানদার ইসমাইল হোসেন মনার কাছে মোবাইল নিয়ে গেলে যাদের ৪হাজার৭’শ টাকা আসছে তাদের ১৮’শ টাকা করে প্রদান করেন। এভাবে ১’হাজার, ৮’শ, ৪’শ যাকে যে ভাবে পারেন কমবেশি টাকা টাকা দিয়ে বিদায় করেন। ৫৭নং পশ্চিম বাশগাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২’শ১৭জন শিশু শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা এভাবে হাতিয়ে নেন মনা। অভিযোগ আছে বিগত পাচ বছর ধরে তিনি এ কাজ করে আসছেন। গত কাল সকালে ওই এলাকার পঞ্চম শ্রেণী পড়ুয়া ছাত্র শিবিরের মা, মনার দোকানে কত টাকা আসছে দেখতে গেলে তাকে মোবাইলে না দেখে বলেন ১৮’শ টাকা আসছে টাকা নেন।ভদ্র মহিলার সন্দেহ হলে তিনি টাকা না নিয়ে বলেন আমি পড়ে টাকা তুলবো, এখন নিবোনা না বলে চলে যান। পড়ে বিকেলে টাকার প্রয়োজন হলে খাশেরহাট বাজারে টাকা তুলতে গেলে পিনকোট লক করা পান টাকা তুলতে না পারায় তৎক্ষনাক মনার দোকানে আসলে মনা তাকে ১৮’শ টাকা দেন এবং ভদ্র মহিলা পিন নাম্বারটি চেয়ে নিয়ে অন্য দোকানে গিয়ে কত টাকা আসছে যাতনে চাইলে যানতে পারেন তার দুই বাচ্ছার নামে ৪’হাজার ৭’শটাকা আসছে । মনাকে গিয়ে ৪হাজার ৭’শ টাকার কথা বল্লে অস্বীকার করেন এবং হুমকি ধামকি প্রদান করেন, তখনি খাশের হাট বাজারের দোকানদারের সাথে মোবাইলে কথা বলিয়ে দিলে মনা পড়ে ২’হাজার ৯’শ টাকার ফেরত দেন। এ কথা চারো দিকে জনাযানি হলে আজ বিকেলে গ্রামের মানুষ তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন এবং পুলিশে খবর প্রদান করেন। পুলিশ এসে তাকে খাশের হাট ফারিতে নিয়ে জান। কেউ তার বিরুদ্ধে মামলা না করে তাদের টাকা ফেরত চান বলে দাবি করেন। মনা তাদের সকলের টাকা ফেরত দিবেন বলে স্বীকার করে মুচলেকা দিয়ে মুক্ত হন।
পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ুয়া শিবিরের মা নাজমা বেগম বলেন, আমরা মামলা দিবো না আমরা আমাদের টাকা ফেরত চাই। আমাদের টাকা ফেরত পেলেই আমরা খুশি।
ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গিয়াস উদ্দিন বলেন,আমার কাছে আজ এ ব্যাপারে বিচার আসলে আমি আমার অফিসে জানাই এবং দোকানদারকে আরো কয়েক জন মিলে জিঙ্গাসা করলে শিকার করে সকলের টাকা ফেরত দিবেন বলে স্বীকার করেন।
অভিযুক্ত দোকানদার ইসমাইল হোসেন মনা বলেন, আমি অন্যায় করেছি সকলের কাছে এমন আর হবেনা আমাকে সবাই মাফ করেদেন, সবার টাকা আমি ফেরত দিয়েদিরো।
খাশেরহাট ফারির আইসি ইমদাদুল হক জানান,মনার নামে কেউ মামলা না করায় ও পাওনাদাররা তাদের টাকা চান এবং মনা তাদের টাকা ফেরত দেওয়ার অঙ্গিকার করায় মুচলেকা নিয়ে ইসমাইল হোসেন মনাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর