• মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৭:৫৬ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
শিগগির বাংলাদেশে ‘কোভ্যাক্সিন’র ট্রায়াল চালাতে চায় ভারত সাতক্ষীরায় জুলাই মাসে করোনায় ১৫, উপসর্গে ২০৫ জনের মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জ ছিনতাইকৃত মহিষ আক্কেলপুরে উদ্ধার রবিউল এবার পেল সুচিকিৎসার ব্যবস্থা, সমাজসেবা থেকে পেল আর্থিক সহায়তা বোয়ালমারীতে জেলা পরিষদ বানিজ্যিক ভবনের কক্ষ থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার সুন্দরগঞ্জে টিকা সম্প্রসারণে অবহিতকরণ সভা মাধবপুরে কঠোর নজরদারিতে এসিল্যান্ড অভিযানে ১৩টি মামলায় জরিমানা সেই পরিত্যক্ত ঘরেই মারা গেলেন জনপ্রিয় শিক্ষক যত্রতত্র ফেলা হচ্ছে বর্জ্য, হুমকির মুখে পরিবেশ বকশীগঞ্জে ৩৩৩ ফোন ও খুদে বার্তা পাঠিয়ে খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন ১৪০০ পরিবার!

মাধবপুরে আত্বহত্যা প্ররোচনায় স্বামী গ্রেফতার

পিন্টু অধিকারী, মাধবপুর (হবিগঞ্জ)
প্রকাশ হয়েছে : শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১ | ৯:৫০ pm
                             
                                 

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার রসুলপুর গ্রামে প্রেমিকা কে ঘরে না তুলে বিষপানে আত্বহত্যার প্ররোচনায় মামলায় প্রেমিক আব্দুল আহাদ কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে মাধবপুর থানার কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক উত্তম কুমার দাস এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ চৌমহনী ইউনিয়নের মদনপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে আব্দুল আহাদ কে গ্রেফতার করে। ধৃত আব্দুল আহাদ উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের মৃত রফিক মিয়ার ছেলে। রসুলপুর গ্রামের আব্দুল আহাদ মিয়ার সঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার সোনামুড়া গ্রামের সালমা বেগম (৩২) নামে প্রবাস ফেরত এক নারীর মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে ।

গত ৮জুন সালমা বেগম রসুলপুর গ্রামের আব্দুল আহাদের বাড়িতে এসে তাকে ঘরে তুলে নিতে চাপ সৃষ্টি করে। আব্দুল আহাদ রাজি না হওয়ায় সালমা বেগম পুকুর পাড়ে বিষ পান করে। পরে আশংকাজন অবস্হায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। সালমার মা জাহানারা বেগম জানান সালমা ওমানে থাকাকালীন মোবাইল ফোনে তাদের প্রেমের সম্পর্ক হয়, গত ৩ মাস আগে সালমা উমান থেকে দেশে আসে।পরে আব্দুল আহাদের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। স্বামীর দাবি নিয়ে সালমা আহাদের বাড়ি গেলে তাকে ঘরে না উঠিয়ে বিষ খাইয়ে দিয়ে হত্যা করা হয়। এব্যাপারে সালমার মা জাহারানা বেগম গত ১০জুন আব্দুল আহাদ কে প্রধান আসামি করে মাধবপুর থানায় একটি মামলা রুজু করেন। এর পর থেকে আব্দুল আহাদ আত্বগোপনে চলে যায়।মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরির্দশক উত্তম কুমার দাস তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে মামলার ৮দিনের মাথায় প্রধান আসামি আব্দুল আহাদ কে গ্রেফতার করেন। মাধবপুর থানার ওসি মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর