• বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:২৮ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English

শ্যামনগরে প্রায় তিন শত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঘন্টা বাজল

রনজিৎ বর্মন, শ্যামনগর (সাতক্ষীরা)
প্রকাশ হয়েছে : সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭:১১ pm
                             
                                 

দীর্ঘ দেড় বছর পর সারা দেশের ন্যায় সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলায় প্রাথমিক,মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক সব মিলিয়ে প্রায় তিন শত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সকালে সশরীরে পাঠ দান শুরুর লক্ষে ঘন্টা বেজে উঠল।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বিবেচনা করে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে প্রায় ১৮ মাস কয়েক দফায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয় । সম্প্রতি করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমে যাওয়ায় সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলি ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে পাঠ দান শুরু করে দেওয়ার ঘোষণা দেয়। সে অনুযায়ী উপজেলায় ১৯১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৪৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৩৬টি মাদ্রাসা ও ৭টি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় পাঠ দান শুরুর লক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ঘন্টা বাজল।

স্কুলে শিক্ষার্থীদের আগমন উপলক্ষে সকল পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাজ সাজ রব ছিল। অনেক স্কুলের গেট গুলি সাজানো হয় বর্ণিল সাজে। ফুলের স্টিক দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয় শিক্ষার্থীদের। আবার অনেক স্কুলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাক্স বিতরণ করা হয়। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী স্কুল গেটে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা, তাপমাত্রা পরিমাপ করা , সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রবেশ করা ও বাহির হওয়া, স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের অবহিত করা সহ অন্যান্য কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়।

শ্যামনগর শিশু শিক্ষা নিকেতনের প্রধান শিক্ষক পরিমল কর্মকার বলেন তার বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা শিক্ষা অফিসার, সহকারী শিক্ষা অফিসার শিশুদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন।

নকিপুর পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণানন্দ মুখ্যার্জী বলেন তার বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের প্রবেশ পথ বেলুন দিয়ে সুসজ্জিত করে সাজানো হয় এবং ফুল দিয়ে শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়া হয়। নকিপুর সরকারি হরিচরণ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক ড. মুহাঃ আব্দুল মান্নান নিজে শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেন প্রবেশ পথে।

সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা লিপিকা রায় ও বিশাখা রানী বলেন তাদের স্কুলে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য বিধি মেনে প্রবেশ, হাত ধোয়া, বসার স্থান সব কিছু শিক্ষকরা পরামর্শ দিয়েছেন ও মনিটরিং করেছেন।

এ দিকে শ্যামনগর উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কিনা সেটি দেখার জন্য জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ রহুল আমিন সরজমিনে ৪২ নং নওয়াবেঁকী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন।

জানা যায় প্রথম দিনে পাঠ দান নয় শিক্ষার্থীদের সরকারি সকল নির্দেশনা মেনে চলার জন্য অবহিত করা হয়। সকল পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল শিশুদের কলকাকলিতে মুখরিত। শ্যামনগর ফুলবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গণেশ চন্দ্র সাহা বলেন রবিবার প্রথম দিনে উপজেলায় শিক্ষার্থীদের গড় উপস্থিতি ছিল শতকরা ৮৬ ভাগ। মাধ্যমিক ,উচ্চ মাধ্যমিক ও অন্যান্য পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিতি ছিল খুব ভাল।

শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ.ন.ম আবুজর গিফারী বলেন শ্যামনগরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্য বিধি মানা হয়নি এমন অভিযোগ তিনি পাননি।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর