• রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ১২:৫৭ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
ঘাটাইলের দেওপাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হেপলুর উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ মাগুরায় করোনা প্রতিরোধে এমপি শিখরের অনুদানে মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ শ্যামনগরে দুই দিনে করোনা টিকার ২য় ডোজ গ্রহণ করলেন ২১০জন শ্যামনগরে মোবাইলকোটে প্রায় আটহাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান মাদারীপুরে মেজর ও মেরিন অফিসার পরিচয় দিয়ে প্রতারনার সময় ৩জন আটক করোনায় মাদারীপুরের শিবচরে এক ব্যাক্তির মৃত্যু মণিরামপুরে করোনা নির্দেশনা না মানায় জরিমানা তাহিরপুরে বালু উত্তোলনে বাঁধা দেয়ায় বালু খেকোদের মারপিটে এক ব্যক্তি আহত ‘২০০ টাকার জন্য খুন করেছি’ ঘাতক বন্ধুর স্বীকারোক্তি সাতক্ষীরায় দিন-দুপুরে বন্ধুকে জবাই করে হত্যা

সুনামগঞ্জের আদালত ভবনে উদ্ধারকৃত অজ্ঞাত লাশটি স্কুল ছাত্রের

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া, হাওরাঞ্চল, সুনামগঞ্জ
প্রকাশ হয়েছে : মঙ্গলবার, ৩০ মার্চ ২০২১ | ৭:১০ pm
                             
                                 

সুনামগঞ্জে নির্মাণাধীন আদালত ভবনের ভিতর থেকে উদ্ধারকৃত অজ্ঞাত কিশোরের লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম- অনিক চন্দ্র বর্মন (১৬)। সে সুনামগঞ্জ সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী ও জেলার তাহিরপুর উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের তেলিগাঁও গ্রামের কয়লা ব্যবসায়ী প্রদীপ চন্দ্র বর্মনের ছেলে। তবে মৃত স্কুলছাত্রের গলায় রশ্মি প্যাঁচানোর দাগসহ মাথা, পা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তাই ধারনা করা হচ্ছে, কেউ স্কুলছাত্র অনিককে নির্মাণাধীন আদালত ভবনের ভিতরে নিয়ে হত্যা করে ফেলে রেখে গেছে। কিন্তু এব্যাপারে আজ মঙ্গলবার (৩০শে মার্চ) দুপুর পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি বলে জানা গেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- সুনামগঞ্জ পৌর শহরের পশ্চিম নতুনপাড়া এলাকায় একটি বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করতো স্কুলছাত্র অনিক চন্দ্র বর্মন ও তার পরিবার। প্রতিদিনের মতো গত রবিবার (২৮শে মার্চ) সকাল ১০টায় বাসা থেকে বাহিরে যায় স্কুলছাত্র অনিক। এরপর দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের পাশে নির্মাণাধীন চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ১০তলা নতুন ভবনের ২য় তলার সিঁড়ির মাঝে স্কুলছাত্র অনিকের লাশ পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে পুলিশ লাশের কোন পরিচয় না পেয়ে অজ্ঞাত হিসেবে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। অন্যদিকে ছেলে অনিককে অনেক খোঁজাখুজি করে কোথাও না পেয়ে মহাচিন্তায় পড়ে যায় বাবা প্রদীপ চন্দ্র বর্মন। এমতাবস্থায় গতকাল সোমবার (২৯শে মার্চ) সকাল ৮টায় খবর পেয়ে হাসপাতাল মর্গে গিয়ে স্কুলছাত্র অনিকের লাশ দেখে বাবা প্রদীপ চন্দ্র ছেলের সন্ধান পান। সেই সাথে পুলিশ ও অজ্ঞাত লাশের পরিচয় সনাক্ত করতে সক্ষম হয়।
ছেলেকে হারিয়ে মর্মাহত বাবা প্রদীপ চন্দ্র বর্মণ বলেন- আমি একজন কয়লা ব্যবসায়ী। আমার ৪ ছেলের লেখাপড়ার জন্য গ্রাম ছেড়ে সুনামগঞ্জ শহরে এসে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকি। আমাদের সাথেতো কারো কোন শত্রুতা নাই। তাহলে এমন নির্মম ভাবে কে আমার অবুঝ সন্তান অনিককে হত্যা করল। আমি এর বিচার চাই।
এব্যাপারে আজ মঙ্গলবার (৩০শে মার্চ) দুপুরে সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি শহিদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন-উদ্ধারকৃত লাশের পরিচয় পরিবারের লোকজন এসে শনাক্ত করেছে। মৃত ছেলেটি একজন স্কুলছাত্র। আমরা তার মৃত্যুর কারণ জানার চেষ্টা করছি। তবে ময়না তদন্তের রির্পোট পাওয়ার পর মৃত্যু আসল কারণ জানা যাবে। এব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 1
    Share


এই বিভাগের আরো খবর