• শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English

সুনামগঞ্জে ৩শত বছরের পুরনো জমিদার বাড়ি সংরক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া, হাওরাঞ্চল, সুনামগঞ্জ
প্রকাশ হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৭:২৬ pm
                             
                                 

সুনামগঞ্জে প্রায় ৩শ বছরের পুরনো দৃষ্টি নন্দন একটি জমিদার বাড়ি পুরাকীর্তি হিসেবে সংরক্ষণের জন্য উদ্যোগ নিয়েছে বর্তমান সরকার। গত ২১শে জানুয়ারী সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব নাজমা বেগম সাক্ষরিত পত্রে প্রতœতত্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে এই সংক্রান্ত সিদ্ধান্তের গেজেটের কপি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করতে বলা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়- জেলার প্রবাসী অধ্যুসিত জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নে অবস্থিত এই জমিদার বাড়ি। তবে সবার কাছে এই বাড়িটি পাইলগাঁও জমিদার বাড়ি হিসেবে পরিচিত। প্রায় সাড়ে ৫ একর জায়গা নিয়ে অবস্থিত এই জমিদার বাড়ি। এখানে রয়েছে ২টি বিশাল আকৃতির পুকুর ও ১টি নন্দানিক কাচারী ঘর। আর এই কাচারী ঘরের ভিতর জমিদার আমলে প্রজাদের বিচার কাজ পরিচালনা করা হতো। এছাড়াও রয়েছে একটি কারাঘার। যেখানে সাজাপ্রাপ্ত কয়েদিদের রাখা হতো। আর জমিদারের পরিবারের লোকজনের বসবাসের জন্য রয়েছে ১টি দৃষ্টি নন্দর অট্রালিকা। এখানে আরো আছে বিষ্ণু, ভোগ ও দোলবেদী নামের ৩টি মন্দির। পুকুরে রয়েছে সান বাঁধানো ঘাট। এই জমিদার পরিবারের সর্বশেষ জমিদার ছিলেন ব্রজেন্দ্র নারায়ান চৌধুরী। তিনি ছিলেন একজন প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিবিদ। তিনি প্রতিষ্টা করেছেন পাইলগাঁও বিএন উচ্চ বিদ্যালয়সহ সিলেটের রসময় উচ্চ বিদ্যালয় ও সিলেট মহিলা কলেজ। এছাড়াও রয়েছে তাদের আরো অনেক গুনর্কীতি। যা এলাকার সর্বস্তরের মানুষের মুখে মুখে সব সময় ফুঠে উঠে।

এব্যাপারে পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মখলিছুর রহমান বলেন- ইতিহাস ঐতিহ্যের নিদর্শন প্রায় ৩শত বছরের পুরনো প্রাচীন আমলের এই জমিদার বাড়িটি এক নজর দেখার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে শতশত পর্যটকরা ছুটে আসে। কিন্তু দীর্ঘদিন যাবত পাইলগাঁও জমিদার বাড়িটি ভূমি খেকোদের দখলে থাকার কারণে অযতœ আর অবহেলায় প্রাচীন পুরার্কীতির অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বর্তমান সরকার এই বাড়িটি সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়ায় এলাকাবাসী খুব আনন্দিত।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেদী হাসান গত বুধবার সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান- পাইলগাঁও জমিদার বাড়িটি পুরাকীর্তি হিসেবে সংরক্ষণের জন্য আবেদন করলে গত বছরের ১২ই ফেব্রুয়ারী প্রতœতত্ত অধিদপ্তরের একটি দল সরেজমিনে পরিদর্শন করে। তারপর পাইলগাঁও জমিদার বাড়িটি প্রতœতাত্ত্বিক গুরুত্ব থাকার কারণে পুরার্কীতি হিসেবে জমিদার বাড়িটি সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 18
    Shares


এই বিভাগের আরো খবর