• মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম
শিগগির বাংলাদেশে ‘কোভ্যাক্সিন’র ট্রায়াল চালাতে চায় ভারত সাতক্ষীরায় জুলাই মাসে করোনায় ১৫, উপসর্গে ২০৫ জনের মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জ ছিনতাইকৃত মহিষ আক্কেলপুরে উদ্ধার রবিউল এবার পেল সুচিকিৎসার ব্যবস্থা, সমাজসেবা থেকে পেল আর্থিক সহায়তা বোয়ালমারীতে জেলা পরিষদ বানিজ্যিক ভবনের কক্ষ থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার সুন্দরগঞ্জে টিকা সম্প্রসারণে অবহিতকরণ সভা মাধবপুরে কঠোর নজরদারিতে এসিল্যান্ড অভিযানে ১৩টি মামলায় জরিমানা সেই পরিত্যক্ত ঘরেই মারা গেলেন জনপ্রিয় শিক্ষক যত্রতত্র ফেলা হচ্ছে বর্জ্য, হুমকির মুখে পরিবেশ বকশীগঞ্জে ৩৩৩ ফোন ও খুদে বার্তা পাঠিয়ে খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন ১৪০০ পরিবার!

বিক্রি নিয়ে চিন্তিত কৃষক

১২শ ৫০ কেজির বিগ-বস,দাম হাঁকা হচ্ছে ২০ লাখ

মো: আসাদুজ্জামান, ঠাকুরগাঁও
প্রকাশ হয়েছে : বুধবার, ৭ জুলাই ২০২১ | ৭:৫৮ pm
                             
                                 

কোরবানি উপলক্ষে বিক্রির জন্য ১২শ ৫০ কেজি ওজনের একটি গরু প্রস্তুত করেছেন কৃষক আফিল উদ্দিন। শখ করে গরুটির নাম রেখেছেন “বিগ-বস”। উচ্চতায় ৫ ফিট চার ইঞ্চি ও লম্বা ১০ফিট কালো ও হালকা লালচে রঙের এই গরুটির বয়স চার বছর। বিগ-বসের দাম হেঁকেছেন ২০ লাখ টাকা।

রোববার(৪ জুলাই) কৃষক আফিল উদ্দিনের বাসায় গেলে এমনি এটি বিষয়টি চোখে পড়ে।

কৃষক আফিল উদ্দিন ঠাকুরগাঁও হরিপুর উপজেলার ডাঙ্গিপাড়া ইউনিয়নের তালতলা গ্রামের বাসিন্দা। নিজের বাসায় লালন পালন করেছেন গরুটি। প্রতিদিন আশপাশের মানুষ তাঁর বাড়িতে ভিড় করছে একঝলন এই বিস বসকে দেখতে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,হরিপুর উপজেলার ডাঙ্গিপাড়া ইউনিয়নের তালতলা গ্রামে আফিল উদ্দিনের বাড়িতে এই বিস-বসকে দেখতে আশে পাশের নারী-পুরুষেরা। ২০১৭ সালের দিকে প্রথম বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার লাহেরী হাটের বাজার থেকে এলসি জাতের ছোট বাছুর ক্রয় করেছিলেন তিনি। সেই সময় ধরেই নিজ বাসায় গোয়াল ঘড়ে এই গরুটিকে লালন করে যাচ্ছেন এই কৃষক। বিগ-বসের গায়ের রং কালো ও মাথায় হালকা লালচিয়া দাগ রয়েছে। প্রতিদিন প্রায় এক থেকে দেড় হাজার টাকার খাবার দিতে লাগে এই বিস-বসকে। আসন্ন কোরবানির ঈদে শখের বসে বড় করা এই বিগ-বসকে বিক্রি করতে চেয়েছিলেন কৃষক আফিল। তবে করোনার এই মহামারিতে শখের এই গরুটির বিক্রি নিয়ে চিন্তিত তিনি। করোনার সময় বিগ বসকে কার হাতে তুলে দেবেন, ন্যায্য মূল্য পাবেন কিনা এ নিয়ে তিনি শঙ্কায় রয়েছেন তিনি।

আফিল উদ্দিনের বাসায় বিগ-বসকে দেখতে এসেছেন স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল হাই। তিনি বলেন,বাসার পাশে আর্ফিল ভাই একটা গরু দীর্ঘদিন ধরেই লালন পালন করে আসছে। একজন মানুষ যেভাবে তার সন্তান মানুষ করে যন্ত সহকারে ঠিক সেভাবে তিনিও এই গরুকে যন্ত সহকারে বড় করেছেন। গরুটি অনেক বড়,এর আগে এতো বড় গরু দেখিনাই। এছাড়াও এখানে অনেকই আসছে গরুটি দেখতে।

গণি মিয়া নামের আরেকজন স্থানীয় বাসিন্দা বলেন,আফিল উদ্দিন বর্তমানে এই গরুটি নিয়ে চিন্তিত। কারন বর্তমান করোনার জন্য সকল কিছু বন্ধু। ঈদে সেই গরু বিক্রি করে সে কিছু লাভের আশা করেছিলেন। তবে এখন সেটি হবে কিনা তা বলা যাচ্ছেনা। তবে আমাদের এলাকায় এই প্রথম এতো বড় আকারের গরু দেখলাম।

কৃষক আফিল উদ্দিন জানান,চার বছর হয়ে গেলো গরুটি আমার বাসায় রয়েছে। এখানে তার দেখাশুনা করা হয়। দানাদার ও লিকুইড খাদ্য হিসেবে খৈল,গম,ভুট্টা,বুট ও ছোলার ভুষি,চিটাগুড়, ভিজানো চাল, খুদের ভাত, খড়, নেপিয়ার ঘাস ও কুড়া মিলে দিনে দুইবার খাওয়া দিতে হয়। তীব্র গরমে গভীর রাতে উঠে ‘বিগ বসকে’ কখনও দুবার গোছল করানো হয়েছে। গোয়ালঘর থেকে গরুটি বের করা হয়না। খাওয়া,গোছল সবই গোয়ালঘরে করানো হয়। কয়েক বছরের মধ্যে এবারে পথম শুক্রবার বিক্রির জন্য গোয়াল থেকে বিগ বস বাইরে আনা হয়েছে। এখন পর্যন্ত এই গরুর পিছনে প্রায় ১২ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বিগ-বসের পিছনে প্রতিদিন প্রায় ২ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। এখন পর্যন্ত তার পিছনে প্রায় ১২ লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে। নিরাপত্তা দিতেও এখন রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে আমাকে। নিজের সন্তানের মতো চার বছর ধরে লালন-পালন করে আজকের এই বিগবসকে। করোনার জন্য এবারে তাকে বিক্রি করতে পাড়বো কিনা তা নিয়ে চিন্তায় রয়েছি। অনেকে ৮-১০ লাখের মতো দাম বলছে কিন্তু আমি সেই দামে দিবোন।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আলতাফ হোসেন বলেন কৃষিবিদ আলতাফ হোসেন বলেন,আমার শুনেছি এই গরুটির বিষয়ে। সেই সাথে উপজেলা প্রাণিসম্পদে যারা আছে তারা এইসব কৃষকদের সাথে পরামর্শ করে থাকেন। এছাড়া এবারে করোনার জন্য কোরবানির হাট বসবে কিনা তা নিয়ে চিন্তিত। কারন বর্তমান জেলায় করোনর প্রকোপ বেশি। এজন্য আমরা অনলাইনের মাধ্যমে গরু বিক্রির একটি ব্যবস্থা করছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন


এই বিভাগের আরো খবর