• বৃহস্পতিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২০, ১১:৫৮ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
/ ছড়া ও কবিতা
বিশ্ব কবি আলাউদ্দিন হোসেন তোমার সৃষ্টিতে ধন্য মোরা ধন্য বাংলা ভাষা তোমার লেখা কাব্য ছড়ায় নব দিগন্তের আশা। তুমি লিখেছ মধুর ছড়া শিশু-কিশোরের তরে তোমার লেখা কাব্য ছড়ায় জগৎ গেছে -বিস্তারিত
কথা দিলাম কোহিনূর আক্তার আমি তো তোমার হতে পারিনি। জীবন সুখের দলিলটা তোমার নামে লিখেছি তা কখনো ফেরত চাইনি। আমি ফেরারী মানুষ তাই নিজেকে একটুও ভেবে দেখিনি। কতটা ঢেউ এলে
  অসহায়ের কান্না  স,ক,নিক্কন    বান ভাসি মানুষেরা আজ বড় অসহায় অন্ন জুটে না ভাগ্যে ওদের ওরা নিরুপায় , বিত্ত বৈভবের মানুষ যারা আছ এ দেশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দাও
কদম কেয়া জুঁই আলাউদ্দিন হোসেন বর্ষাজুড়ে কদম হাসে নাচে বৃষ্টির ঘ্রাণে পাপড়িগুলো ভেসে চলে ভরা বর্ষা প্রাণে। বর্ষা মুখর রুপের ভেলা সুবাসিত কেয়া রুপের টানে বাংলাজুড়ে বসে নতুন খেয়া। জুঁইয়ের
কদম হাসে আলাউদ্দিন হোসেন   কদম হাসে বর্ষাজুড়ে বৃষ্টি করে আড়ি পাপড়িগুলো জ্বলে ভাসে দৃশ্যটা বেশ ভারী। কিশোর তরুণ কদম পাড়ে মনে খুশির রং নববধূ অবাক চোখে দেখে রঙিন ঢং।
আত্মকথন মারিয়া নুর   সময়ের ধারাপাতে বন্দি জীবন, কতো বৈচিত্রেই না রূপ পাল্টায়! অদৃশ্য কালিতে আঁকা বিধিলিপি ব্যঙ্গ করে প্রতি নিয়ত। তবুও, হতাশা আঁকড়ে বেঁচে থাকা যায় না বলেই প্রত্যাশার
আমাদের সমাজ আমেনা তালুকদার(বৃষ্টি) সমাজের বাস্তব অবস্থা আমাকে কাঁদায়, বুখের ভেতর নীরব কান্নার নদী বয়ে যায়। সমাজে সমান গুরত্বের ছিল যে নারী প্রতিনিয়ত সম্মানি নারীরা হচ্ছে অসম্মানি। ভোরে নিদ্রা ছেড়ে
১.বৃষ্টির ছোঁয়া আষাঢ় শ্রাবণ বৃষ্টি ঝরে হাসে সবুজ বন খাল-বিলে ব্যাঙের নাচন খুলে আপন মন। সবুজ বনে নেচে বেড়ায় প্রজাপতির ঝাঁক ঘন বৃষ্টির ছোয়া পেয়ে হাসে নদীর বাক। আষাঢ় শ্রাবণ